Total Care BD

Best Caring Website of Bangladesh

লো ব্লাডপ্রেশার হলে যা করবেন

শেয়ার করুন

লো ব্লাডপ্রেশার । আমরা অধিকাংশ সময় উচ্চ রক্তচাপের কথা শুনি। তবে নিম্ন রক্তচাপ বা রক্তচাপ কম হওয়া বা লো ব্লাডপ্রেশারও একটি বড় সমস্যা। বমি, বমি বমি ভাব, ঘুম ঘুম ভাব, বিষণ্ণতা, চোখে ঝাপসা দেখা, পানিশূন্যতা, মনোযোগের অভাব ইত্যাদি লো ব্লাডপ্রেশারের লক্ষণ।

লো ব্লাডপ্রেশার

ব্লাডপ্রেশার বা রক্তচাপ মানবদেহে রক্ত সঞ্চালনে চালিকা শক্তি হিসেবে কাজ করে। মানবদেহে রক্তচাপের একটি স্বাভাবিক মাত্রা আছে। তার ওপর ভিত্তি করেই উচ্চ রক্তচাপ বা হাই ব্লাডপ্রেশার ও কম রক্তচাপ বা লো ব্লাডপ্রেশার পরিমাপ করা হয়। রক্তচাপ একটি সুনির্দিষ্ট মাত্রার মধ্যে থাকে এবং তা দুই ধরনের হয়। উপরের মাপকে সিস্টলিক রক্তচাপ ও নিচের মাপকে ডায়োস্টোলিক রক্তচাপ বলা হয়। সাধারণত মানবদেহে সিস্টলিক রক্তচাপ ১০০ থেকে ১৪০ পর্যন্ত এবং ডায়োস্টোলিক রক্তচাপ ৬০ থেকে ৯০ পর্যন্ত হয়ে থাকে। যদি কারও এর চেয়ে বেশি মাত্রার রক্তচাপ থাকে তবে এ অবস্থাকে উচ্চ রক্তচাপ বা হাই ব্লাডপ্রেসার বলা হয় এবং যদি কারও এর চেয়ে কম রক্তচাপ থাকে, তবে এ অবস্থাকে কম রক্তচাপ বা লো ব্লাডপ্রেশার বলা হয়ে থাকে। পানিশূন্যতা দেখা দিলে যেমন অতিরিক্ত ঘাম, ডায়রিয়া বা অত্যধিক বমি হওয়া, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ_ দেহের ভেতরে কোনো কারণে রক্তক্ষরণ হলে যেমন রক্তবমি, পায়খানার সঙ্গে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হলে, শারীরিকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত বা দুর্ঘটনার ফলে রক্তপাত ঘটলে এবং অপুষ্টিজনিত কারণে লো ব্লাডপ্রেশার দেখা দিতে পারে। এছাড়া গর্ভবতী মায়েদের গর্ভের প্রথম ছয় মাস হরমোনের প্রভাবে লো প্রেশার হতে পারে।
মাথা ঘোরানো বা মাথা হালকা অনুভূত হওয়া, মাথা ঘুরে অজ্ঞান হয়ে যাওয়া, বসা বা শোয়া থেকে হঠাৎ উঠে দাঁড়ালে মাথা ঘোরা বা ভারসাম্যহীনতা, চোখে অন্ধকার দেখা বা সরষে ফুলের মতো দেখা বা চোখে ঝাপসা দেখা, শারীরিক দুর্বলতা এবং মানসিক অবসাদগ্রস্ততা, কোনো কিছুতে মনোযোগ দিতে না পারা, ঘন ঘন শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়া বা হাত-পা
ঠাণ্ডা হয়ে যাওয়া, খুব বেশি তৃষ্ণা অনুভূত হওয়া, অস্বাভাবিক দ্রুত হৃৎকম্পন, নাড়ি বা পালসের গতি বেড়ে গেলে বুঝতে হবে আপনি লো ব্লাডপ্রেশারে আক্রান্ত হয়েছেন। লো ব্লাডপ্রেশার বা নিম্ন রক্তচাপের কারণ ও উপসর্গ অনুযায়ী চিকিৎসার প্রয়োজন পড়ে।

বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে জীবনধারাবিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাইয়ের স্বাস্থ্য বিভাগে জানানো হয়েছে লো ব্লাডপ্রেশার কমানোর ঘরোয়া উপায়ের কথা।

পানি

লো ব্লাডপ্রেশার ঠিক করার প্রথম ঘরোয়া পদ্ধতি হলো পানি পান করা। কখনো কখনো লো প্রেশারের কারণে পানিশূন্যতা তৈরি হয়, তাই পানি পান করুন। এ ছাড়া পানি আছে এমন ফলও খেতে পারেন।

শরীরকে ঠান্ডা করুন

কখনো কখনো লো ব্লাডপ্রেশারের কারণে শরীরে গরম লাগতে পারে। এ সময় দ্রুত শরীরকে ঠান্ডা করার চেষ্টা করুন। ভালো হয় ঠান্ডা কোনো জায়গায় গিয়ে শরীরকে শিথিল করতে পারলে। বরফ ঘাড়ে দিতে পারেন স্বস্তি পাওয়ার জন্য।

খাবার

আর্দ্র ফল ও সবজি রক্তচাপকে স্বাভাবিক করতে সাহায্য করে। ভিটামিন ও মিনারেলের অভাব হলে অনেক সময় লো প্রেশার হয়। ফল ও সবজি খাওয়া শরীরে ভিটামিন ও মিনারেলের চাহিদা পূরণ করবে।

ভিটামিন বি

ভিটামিন বি৯ ও বি ১২ লো ব্লাডপ্রেশার ঠিক করার জন্য জরুরি। পাতাকপি, ব্রকলি, ফুলকপি ইত্যাদির মধ্যে রয়েছে ফলিক এসিড। এগুলো খেতে পারেন। ভিটামিন বি১২ লো ব্লাডপ্রেশার কমাতে সহায়ক।

ব্যায়াম

ব্যায়াম হৃৎপিণ্ডের জন্য ভালো। এটি রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। রক্তচাপ ঠিকঠাক রাখতে নিয়মিত ব্যায়াম করুন।

লবণ

যাঁদের রক্তচাপ বেশি, তাঁদের লবণ খাওয়া কমিয়ে দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। তাই রক্তচাপ কম হলে লবণ আছে এমন খাবার বেশি করে খান।

চিকিৎসক

এগুলোর কিছুই যদি কাজ না করে, তবে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যান ও পরামর্শ নিন।

পোষ্টটি নিচের শেয়ার বাটন থেকে শেয়ার করুন । নিয়মিত হেলথ টিপস পেতে যোগ দিন আমাদের ফেসবুক গ্রুপ এ অথবা লাইক দিন আমাদের ফেসবুক পেজ

শেয়ার করুন
Total Care BD © 2016